Blog

আমরা কী সত্যিই মুসলিম না কি নামে মুসলিম?

Amra Muslim আমরা কী সত্যিই মুসলিম না কি নামে মুসলিম?

হ্যাঁ আমরা মুসলিম নামে মুসলিম।
এক জন মুসলিম হিসাবে আমাদের কি করার কথা বলা হয়েছে আর আমরা কি করছি…
আমার গর্ব করে বলি আমার মুসলিম, আগে মুসলিম হন তার পরে বলেন যে আমি মুসলিম।

আমি কিছু মানুষকে প্রশ্ন করেছিলাম যে,,
আপনি কেন মুসলিম?
এক জন মুসলিম হিসাবে আপনার কি করা উচিত?
আর আপনি কি করছেন?
অনেকেই অনেক ধরনের কথা বললেন।
কিছু মানুষ চুপ করে ভাবে।
কেউ বলে মুসলিম ঘরে জন্ম নিয়েছি তাই মুসলিম।

এর আগে এক জন বলছে যে, তাহলে আমাকে কী মুসলিম হতে হবে?
হ্যাঁ: অবশ্যই আপনাকে মুসলিম হতে হবে।
যদি বলেন কেন আমি মুসলিম হবো? আমি তো মুসলিম ঘরের সন্তান আমাকে মুসলিম হতে হবে কেন?

হুম, আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম। যদি বলেন কেন?

আমার জন্মের পর থেকে দেখে আসছি যে, আমাদের দাদা দাদী, নানা নানী, বাবা মা এইটা করছে, বাবা বলছে এটা করো, মা বলছে এটা করো। সেটাই দেখে আমার তাদেরকে অনুসরণ অনুকরণ করছি।

এই যদি আপনি ইহুদি নাসারা বা হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানের ঘরের সন্তান হতেন?
তাহলে ঠিক তাদেরকেই আপনি অনুসরণ অনুকরণ করতেন। এটাই সত্য।

সর্ব প্রথম আল্লাহ সুবহানাহু তাআলার কাছে শুকরিয়া আদায় করুন যে, আল্লাহ সুবহানাহু তাআলা আপনাকে মুসলিম ঘরে জন্ম দিয়েছেন।

ইসলামের মৌলিক ৫টি স্তম্ভ হলোঃ-
১) কালেমা শাহাদাত।
“লা-ইলা-হা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ্‌।” স্বাক্ষ‍্য দেয়া।
২) নামাজ বা সালাত।
নামাজকে বলা হয় দ্বীনের খুঁটি। খুঁটি ছাড়া যেমন ঘর হয় না, তেমনি নামাজ ব্যতীত দ্বীন পরিপূর্ণ হয় না।
প্রত্যেক বালেগ নর-নারীর উপর নামাজ ফরজ করা হয়েছে।
৩) রোজা ।
৪) হজ্ব ।
৫) যাকাত।

সর্ব প্রথম আপনাকে ঈমান আনতে হবে এক কালেমা “লা-ইলা-হা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ্‌।” স্বাক্ষ‍্য দেয়া। প্রথমে আপনার অন্তরে কালেমার বিজ বপন করতে হবে এবং আল্লাহর আদেশ নির্দেশ, হুকুম আহকাম গুলো যথাযথ ভাবে পালন করতে হবে।

একটা গাছকে জন্ম দিতে হলে আপনাকে কি করতে হবে প্রথমে?
জায়গা নির্বাচন করতে হবে।
তারপরে ধাপে বিজ বপন করতে হবে।
যখন বিজ থেকে গাছ হবে। তখন আপনাকে গাছটাকে যত্ন নিতে হবে। যাতে করে কেউ বিনষ্ট না করতে পারে।
একটা গাছ দাঁড়িয়ে থাকে তার কান্ডর উপরে।
আস্তে আস্তে গাছটা বড় হবে। একটা পর্যায়ে ফুল ফল হবে গাছে।

মূল গল্পে আসা যাক:

• জায়গা নির্বাচন করতে হবে। অর্থাৎ আপনাকে চিন্তা করতে হবে যে আপনি কে? কি করতে আসছেন এই পৃথিবীতে? কেন আপনাকে সৃষ্টি করা হয়েছে? যদি আপনি বোঝেন নিজেকে তাহলে আমাকে বিজ বপন করতে হবে।
• ‎
• ‎তারপরে ধাপে “বিজ বপন করতে হবে”। অর্থাৎ কালেমা শাহাদাত।
“লা-ইলা-হা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ্‌।”অন্তর থেকে মনে প্রাণে স্বাক্ষ‍্য দিতে হবে।

• যখন বিজ থেকে গাছ হবে। তখন আপনাকে গাছটাকে যত্ন নিতে হবে। যাতে করে কেউ বিনষ্ট না করতে পারে। আস্তে আস্তে গাছটা বড় হবে। অর্থাৎ আপনি যখন ঈমান আনবেন আপনার উপর ঝড়-ঝাপটা আসবে। শয়তানের বিভিন্ন কুপ্রবৃত্তি আসতে পারে। নিজের ঈমানকে ঠিক রাখতে হবে।
• ‎একটা গাছ দাঁড়িয়ে থাকে তার কান্ডর উপরে। অর্থাৎ কান্ড হচ্ছে আপনার নামাজ। একটা গাছ যেমন কান্ড ছাড়া দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না । তেমনি ভাবে, নামাজ ছাড়া আপনি ঈমান ঠিক রাখতে পারবেনা। নামাজকে ধরে রাখতে হবে।
• ‎আর “ফুল ফল” হচ্ছে আপনার আমল।
• ‎এক জন মুসলিমের অবশ্যই  রমযান মাসে রোজা রাখতে হবে।
• ‎হজ্ব এবং যাকাত যার উপর ফরজ তারাই শুধু আদায় করবে।

• আমরা মুখেই শুধু বলি যে আমরা মুসলিম, অন্তরে বলি না।
কিছু মানুষের ফেসবুকে প্রোফাইলে দেখি।
I Love Allah.
I Love Mohammad (S). And etc.
এগুলা ওই ভাবেই লিখে রাখি শুধু, কাজের বেলায় দেখা যায় কী?
আমরা অনুসরণ অনুকরণ করি ইহুদি নাসারা দের। আপনি দেখেন এদের ফেসবুক যে কাকে অনুসরণ করছে?

• আজকের দিনে আপনি দেখুন চারিদিকে, পুরুষ এর কি অবস্থা, পুরুষ এর পেন্ট খুলে নিচে চলে যাচ্ছে। চুল দাড়ি এর যে কতো মডেল। ইহুদি নাসারা যে ভাবে স্টাইল করে, সেইটা করি আমরা। আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম।

• নারীর কি অবস্থা। যত দিন যাচ্ছে ততই নারী উলঙ্গ হয়ে যাচ্ছে। কাকে দেখে এগুলো শিখছে ? ইহুদি নাসারা দের দেখে নিজেকে উলঙ্গ করছে।
‎আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম।

• আমরা অশ্লীল ভিডিও ছবি কিছুই মনে করি না। এখন P.G 13
‎এগুলোকে কেউ পাপ মনে করি না।
‎আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম।

• Ramp Show:
‎নিজের নগ্নতা তুলে ধরছি বিশ্বের কাছে। এইটা নাকি সৌন্দর্য্য।
‎আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম।

• সন্তানদের গান বাজনা, নাচ শিক্ষা দিচ্ছি।
‎আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম।

• মানুষের দোষ ত্রুটি খুঁজে বের করার জন্য উঠে পড়ে লাগি।
‎আমরা মুসলিম, নামে মুসলিম।

আমরা আল্লাহ্ এবং আল্লাহর রাসূলুল্লাহ (সঃ) কে অনুসরণ অনুকরণ করি না।
করি ইহুদি নাসারা দের।

‎আপনি নিজেকে মুসলিম বলে দাবি করেন… তাই তো?
‎এক কালেমার উপর কি ঈমান এনেছেন?
‎সেই অনুসারে কি আপনি চলেন?

আল্লাহ সুবহানাহু তাআলা বলছেনঃ-
সূরা আল ইমরান (১০২)
يٰأَيُّهَا الَّذينَ ءامَنُوا اتَّقُوا اللَّهَ حَقَّ تُقاتِهِ وَلا تَموتُنَّ إِلّا وَأَنتُم مُسلِمونَ

হে ঈমানদারগণ! আল্লাহকে যেমন ভয় করা উচিৎ ঠিক তেমনিভাবে ভয় করতে থাক। এবং অবশ্যই মুসলমান না হয়ে মৃত্যুবরণ করো না।

আপনি একটু ভেবে দেখুন যে আপনি কী সত্যিই মুসলিম? নাকি নামে মুসলিম?
এক জন মুসলিমের যা করা উচিত তা কি আপনি করেন বা করার চেষ্টা করেন?

আল্লাহ বলেছেন যে, “মুসলমান না হয়ে মৃত্যুবরণ করো না।” আপনি কি আল্লাহর কথা বুঝতে পারছেন? আল্লাহ কি বলছেন? কতো বড় একটা কথা।

সূরা আল বাকারাহ্ঃ ৮,৯,১০
আর মানুষের মধ্যে কিছু লোক এমন রয়েছে যারা বলে, আমরা আল্লাহ ও পরকালের প্রতি ঈমান এনেছি অথচ আদৌ তারা ঈমানদার নয়।

তারা আল্লাহ এবং ঈমানদারগণকে ধোঁকা দেয়। অথচ এতে তারা নিজেদেরকে ছাড়া অন্য কাউকে ধোঁকা দেয় না অথচ তারা তা অনুভব করতে পারে না।

তাদের অন্তঃকরণ ব্যধিগ্রস্ত আর আল্লাহ তাদের ব্যধি আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন। বস্তুতঃ তাদের জন্য নির্ধারিত রয়েছে ভয়াবহ আযাব, তাদের মিথ্যাচারের দরুন।

বিঃদ্রঃ আপনার আমার থেকে অনেক বড় জ্ঞান  বিদ্যা বুদ্ধিতে দয়া করে ভুল ত্রুটি থাকলে সংশোধন করে দিবেন। আমরা জ্ঞান এর পরিসীমা অনেক ক্ষুদ্র।

Advertisements